Web
Analytics

অপুর যে অনুরোধটি শাকিব রাখেননি বলে সংসারের আজ এমন পরিণতি…

দু’জনের ইচ্ছাতে নয়, বরং শাকিব খানের একার সিদ্ধান্তে বৈবাহিক জীবনের পর্দা নেমেছে-এমনটি দাবি করেছেন তার স্ত্রী অপু বিশ্বাস। আর শাকিবের কথায় ‘সহ্যের সীমা আছে, অপুর জন্য কী করিনি, সে আমাকে স্বামী হিসেবে কখনো মানেনি।’
গত ২২ নভেম্বর অপু বিশ্বাসকে তালাকের নোটিশ পাঠান শাকিব। আগামী ২২ ফেব্রুয়ারি অপুকে পাঠানো শাকিবের তালাক নোটিশের ৯০ দিন পূরণ হচ্ছে। এর মধ্যে দু’জনের সমঝোতা না হলে বিধি মোতাবেক ডিভোর্স কার্যকর হয়ে যাবে। কিন্তু সিটি কর্পোরেশেনের সালিশী বৈঠকের প্রথমটিতে অপু হাজির হলেও শাকিব ছিলেন অনুপস্থিত। অন্যদিকে শাকিব গণমাধ্যমের কাছে স্পষ্ট জানিয়ে দেন অপুর সঙ্গে সংসার করার ইচ্ছে নেই তার। আজ ১২ ফেব্রুয়ারি সিটি কর্পোরেশনের বৈঠকের দ্বিতীয় তারিখ ছিল। অপু সেখানে যাননি। ডিভোর্স প্রসঙ্গে আনুষ্ঠানিকভাবে ডিভোর্স মেনে নেয়ার কথা জানান অপু।

আগামী ২২ ফেব্রুয়ারি আনুষ্ঠানিকভাবে শাকিব খান-অপু বিশ্বাসের বিচ্ছেদ হয়ে যাচ্ছে। অপু বিশ্বাস বলেন, আমি নই, বরং শাকিবই আমাকে বিয়ের পর থেকে অবহেলা করেছে। তার কাছে আমার শেষ একটি অনুরোধ ছিল সে যেন বুবলীর সঙ্গে কাজ না করে। কারণ শাকিব আর বুবলীর সম্পর্কে নানাজন নানা কথা আমাকে বলছিল। যা স্ত্রী হিসেবে আমি সহ্য করতে পারছিলাম না। কিন্তু শাকিব আমার এই অনুরোধকেও পাত্তা দেয়নি।

ডিভোর্সের পর শাকিব বলেছেন, ঘটনা এখানেই শেষ নয়, এরপরও চাইছিলাম সে যদি ক্ষমা চায় তা হলে আমি নতুন করে চিন্তা ভাবনা করব। কিন্তু সেই সুযোগও সে আমাকে দেয়নি।

অপু বলেছেন, যা হওয়ার তাতো হয়ে গেছে। এখন আমার ধ্যান জ্ঞান একমাত্র আমার সন্তান আবরাম খান জয়। তার জন্য বাঁচব আর তাকে মানুষ করতে পরিশ্রম করে যাব। শাকিবকে নিয়ে আর কখনো কোনো কথা বলতে চাই না।